ইলন মাস্কের টুইটারে ২ কর্মকর্তা বরখাস্ত

১৩ মে ২০২২, ০৭:৫০ এএম

সংগৃহীত ছবি

Runner Media

ডেস্ক রিপোর্ট :

টুইটারের ভোক্তা ও রাজস্ব বিভাগ দেখভাল করা দুই জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাকে সামাজিক মাধ্যমটি থেকে সরে যেতে হচ্ছে। বৃহস্পতিবার (১২ মে) এক মেমোতে কর্মীদের এমন তথ্য জানিয়েছেন ক্ষুদে ব্লগটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পরাগ আগারওয়াল।

এর আগে চার হাজার ৪০০ কোটি ডলারে টুইটারকে কিনে নেওয়ার ঘোষণা দেন মার্কিন ধনকুবের ইলন মাস্ক। তখনই কোম্পানিটিতে বড় ধরনের পরিবর্তনের আভাস দিয়েছিলেন তিনি।

মেমোতে আগারওয়াল বলেন, অধিকাংশ নিয়োগ বন্ধ রাখবে টুইটার। চলমান নিয়োগ প্রস্তাবগুলোও পর্যালোচনা করা হবে। এরপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তার কোনোটি প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে কি না।

এ সিদ্ধান্তের কিছুটা দায় প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার ওপরও বর্তায়। কারণ গেল বছরে ব্যবহারকারী ও রাজস্ব বাড়ানোর যে মাইলফলক নির্ধারণ করা হয়েছিল, তা পূরণ করতে পারেনি সামাজিক মাধ্যমটি। এখন নতুন করে যে লক্ষ্যমাত্রার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে, তাতে সফল হওয়ারও আত্মবিশ্বাস পাচ্ছেন না পরাগ আগারওয়াল।

তিনি বলেন, আমাদের টিম, লোক নিয়োগ ও খরচ নিয়ে আরও সতর্ক হতে হবে।

২০২৩ সালের শেষ নাগাদ সাড়ে ৭০০ কোটি মার্কিন ডলারের বার্ষিক রাজস্ব ও দৈনিক ৩১ কোটি ৫০ লাখ ব্যবহারকারীর মাইলফলক ছোঁয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল টুইটার। কিন্তু সাম্প্রতিক আয়ের প্রতিবেদনের পর সেই লক্ষ্যমাত্রা তুলে নেওয়া হয়েছে।

টুইটারের ভোক্তা শাখা কেইভান বেকপুর ও রাজস্ব বিভাগের দেখভাল করছিলেন ব্রুস ফালক। বৃহস্পতিবার টুইটার বার্তায় তারা জানিয়েছেন, কোম্পানি থেকে তাদের বিদায় নেওয়া স্বেচ্ছায় না।

বেকপুর বলেন, টিমকে ভিন্ন পথে নিয়ে যেতে চাচ্ছেন পরাগ। বিষয়টি আমাকে জানিয়ে টুইটার ছেড়ে চলে যেতে বলেছেন।

বর্তমানে পিতৃত্বকালীন ছুটিতে রয়েছেন কেভিন বেকপুর। আর টুইট পোস্টে ব্রুস ফালক লিখেছেন, আমি আরও খোলাসা করে বলতে চাই, পরাগ আমাকে বরখাস্ত করেছেন।

পরবর্তী সময়ে পোস্ট মুছে দিয়েছেন তিনি। টুইটার থ্রেডে টিমকে ধন্যবাদ জানিয়ে ‘বেকার’ হিসেবে নিজের বায়ো হালনাগাদ করেছেন। ব্রুস ফালক বলেন, কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে আমরা সফলতা অর্জন করেছি। ত্রৈমাসিক রাজস্ব মিথ্যা বলছে না, গুগল খুঁজে দেখতে পারেন।

বেকপুরের ছুটিকালীন টুইটারের ভোক্তা ইউনিটের নেতৃত্ব দিয়েছেন জেই সুলিভান। এবার বিভাগটির স্থায়ী নেতৃত্ব পাবেন তিনি। এছাড়া নতুন নেতৃত্ব আসার আগ পর্যন্ত রাজস্ব বিভাগও থাকবে তার নিয়ন্ত্রণে।
আর এম/ এম আর