ব্রিটেনে ৮৬ বছর বয়সী নারীকে হত্যা, লাইফ সাপোর্টে স্বামী

১৭ জানুয়ারি ২০২২, ১১:১৮ এএম

Runner Media

যুক্তরাজ্য অফিস

 

ব্রিটেনের ডার্বিশায়ারের একটি গ্রামে বাড়িতে চুরি করতে এসে চোরেরা ৮৬ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ নারীকে হত্যা করেছে এবং তার স্বামী চোরদের আক্রমণ থেকে কোনোক্রমে বেঁচে গিয়ে এখন লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন। এ ঘটনায় পুলিশ হত্যার তদন্ত শুরু করেছে।

শনিবার ডার্বিশায়ারের ল্যাংউইথ জাংকশন এলাকায় বৃদ্ধ দম্পতি ৮৬ বছর বয়সী ফ্রেডা ওয়ালকার এবং তার স্বামী ৮৮ বছর বয়সী কেনেথ একটি সেমি-ডিটাচট বাড়িতে বসবাস করতেন। মিসেস ওয়ালকার একজন স্থানীয় রাজনীতিক ছিলেন। তিনি স্থানীয় শায়ারব্রুক কাউন্সিলের সাবেক সদস্য এবং বলসোভার ডিস্ট্রিক্টের সাবেক চেয়ারম্যান ছিলেন। তার স্বামী কেনেথ বৃহস্পতিবার তার ৮৮ তম জন্মদিন পালন করেছেন।

ডার্বিশায়ার পুলিশ জানিয়েছে, এটি একটি সিরিয়াস লেভেল অফ ভায়োলেন্স এর ঘটনা। শনিবার সকাল সাড়ে ৯টায় পুলিশকে স্থানীয়রা খবর দিলে তারা সেখানে উপস্থিত হয়। ধারণা করা হয়েছিল তারা দুজনেই মারা গেছেন। তবে মিসেস ওয়ালকার মারা গেলেও মিঃ কেনেথ তখন পর্যন্ত বেঁচে ছিলেন। এরপর তাকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি আইসিইউতে জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে আছেন।

জানা গেছে, মি কেনেথ এবং মিসেস ওয়ালকার বাড়িতে একাকি থাকতেন। তারা গত ৫০ বছর ধরে দুজনে একই ছাদের নিচে বসবাস করছেন। তারা একে অন্যের প্রতি ব্যাপকভাবে অনুরক্ত ছিলেন। তাদের প্রতিবেশিরা জানিয়েছে, বাড়িটিতে আগন্তুক এবং অপরিচিতরা প্রবেশ করতে পারতো না। সেখানে সব সময়ই দরজা লক করা থাকে। এমনকি তাদের ঘরের জানালা পর্যন্ত বন্ধ রাখা হয়। ফলে প্রতিবেশীদের সাথে তাদের তেমন যোগাযোগ ছিল না। তবে এই বৃদ্ধ দম্পতিকে যারা চেনেন তারা এই ঘটনায় খুবই দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

পুলিশ তদন্তের জন্য বাড়িটি সিলগালা করে রেখেছে। বাড়িটিতে কারও প্রবেশে নিষেধাজ্ঞাও দেওয়া হয়েছে। হত্যার ঘটনায় এখনো কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। স্থানীয় পুলিশের চিফ সুপারেনটেনডেন্ট হেলেই বারনেট বলেন, ল্যাংউইথ জাংকশনের এই ঘটনা অত্যন্ত ঘৃনিত এবং শঙ্কা জাগানিয়া। আমরা এটাকে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে নিবিড়ভাবে তদন্ত কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। ওই এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে না পারলেও আমাদের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। যারাই এই ঘটনা ঘটিয়েছে তাদেরকে আমরা শীঘ্রই আইনের আওতায় আনবো।

আর এম/এম.জে