লন্ডনে বাড়ছে আল্ট্রা লো এমিশন জোন

১৮ জানুয়ারি ২০২২, ০৩:০৩ পিএম

Runner Media

যুক্তরাজ্য অফিস

 

২০৩০ সালের মধ্যে লন্ডনের রাস্তায় কার্বন নিঃসরণ শূন্যের কোঠায় আনতে মেয়র সাদিক খান তার নতুন পরিকল্পনা ঘোষণা দিয়েছেন। আজ এ সংক্রান্ত একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত কমিশন করা হয়েছে মেয়রের মাধ্যমে।

এতে রাজধানী লন্ডনে গাড়ির ঘনত্ব কমানো, জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত জটিলতা রোধ এবং বায়ু দূষণ কমানোর লক্ষ্য হাতে নেওয়া হয়েছে। লন্ডনে গাড়ির ব্যবহার কমাতে সিটি হল কর্তৃপক্ষ সামনের দিনগুলোতে আরও পদক্ষেপ নিতে পারবে।

২০০০ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত সময়ে লন্ডনের কর্মস্থলে ৫৭ শতাংশ গ্রীন হাউস গ্যাসের নিঃসরণ কমেছে, বাসা বাড়িতে কমেছে ৪০ শতাংশ কিন্তু লন্ডনের ট্রান্সপোর্টে কমেছে মাত্র ৭ শতাংশ। আর তাই ২০৩০ সালের মধ্যে নেট জিরোতে গ্রীন হাউস গ্যাসের নিঃসরণ আনতে কর্তৃপক্ষ পেট্রোল ডিজেলের ব্যবহার কমানো, হাঁটা, সাইকেলের ব্যবহার বাড়ানো, পাবলিক ট্রান্সপোর্ট সিস্টেম আরও শক্তিশালী করাসহ ক্লিনার ভেহিকলের ব্যবহার বাড়াবে।

বর্তমানে মাত্র ২ শতাংশ গাড়ি ক্লিনার বা ইলেকট্রিক ভেহিকল। ২০৩০ সালের এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য সাদিক খান মনে করেন লন্ডনের রোডের পাশে এখনকার সময়ের ফিলিং স্টেশনের মতোই চার্জিং সিস্টেম স্থাপন করতে হবে। এছাড়া লন্ডনে আল্ট্রা লো এমিশন জোনের সংখ্যাও বাড়াতে হবে। এতে কার্বন নিঃসরণের উপর ভিত্তি করে গাড়ির নির্দিস্ট ফি আদায় সহ প্রতি মাইল রাস্তায় ফি সিস্টেম চালু করা হবে। তবে কম আয়ের ও শারীরিক ভাবে অক্ষম মানুষদের ক্ষেত্রে এবং দাতব্য সংস্থার গাড়ি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের গাড়ির ক্ষেত্রে এসব ফি ডিসকাউন্ট করা হবে।

এদিকে মেয়র সব ধরনের গাড়ির জন্য ক্লিন এয়ার চার্জ চালু করতে চান, তবে এতে এমিশন মুক্ত গাড়ির জন্য এটা প্রযোজ্য হবে না। মেয়র আরও বলেন, ২০৩০ সাল মেয়াদি এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে আরও বেশি সহযোগিতা দরকার হবে।

আর এম/এম.জে