যুক্তরাজ্যে ১ হাজার মানুষের সেবা দেয় ২ দশমিক ৭ জন ডাক্তার

১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪১ এএম

Runner Media

যুক্তরাজ্য অফিস

যুক্তরাজ্যের ৭৩ বছরের ইতিহাসে এতো খারাপ পরিস্থিতি কখনওই হয়নি যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য খাতে। এর কারন যুক্তরাজ্যের হাসপাতালগুলোতে প্রয়োজনের তুলানায় ৫০ হাজার ডাক্তার কম রয়েছে। আর এ কারনে আগামী শীতের সময় করোনা বা শীতকালীন ফ্লুর জন্য রোগীদের চিকিৎসা নিতে ভয়াবহ ভোগান্তীতে পরতে হবে। 

বিষয়টি নিয়ে ব্রিটিশ মেডিকেল অ্যাসোশিয়েশনের ডাক্তার চাদ নাগপল জানান, এই গ্রীষ্মেই যুক্তরাজ্যের হাসপাতাল গুলোর সেবা ইউরোপের অনেক দেশের তুলনায় খারাপ ছিলো। যা আগামী শীতে গিয়ে আরও বাড়বে। আর এর কারন রোগীদের সেবা দেওয়ার জন্য পর্যাপ্ত  ডাক্তার না থাকা। 

তিনি আরও বলেন আগামী শীতে স্বাস্থ্যখাতের জন্য খারাপ সময় যাবে। মূলত এই সব দেশে শীত কালে মানুষ বেশি অসুস্থ্য হয়। তার বড় কারন শীতকালীন ফ্ল। এর সাথে চলতি সময় এসে করোনা পরিস্থিতি তো রয়েছেই। 

বলা হচ্ছে ইউভূক্ত দেশগুলোর তুলনায় যুক্তরাজ্যে জনগনের গড় অনুমাতে ডাক্তার কম রয়েছে। দেশটিতে প্রতি ১ হাজার জন মানুষের জন্য ডাক্তার রয়েছে ২ দশমিক ৮ জন। যেখানে ইউরোপের দেশ গুলোতে প্রতি ১ হাজার জনের জন্য ডাক্তার রয়েছে ৩ দশমিক ৭ জন। স্বাস্থ্য খাতে জুলাইয়ে করা এক বৈঠকে বলা হয়েছে দেশটিতে রোগীদের পর্যাপ্ত সেবা দিতে আরও ৪৯ হাজার ১৬২ জন ডাক্তারের প্রয়োজন। 

এদিকে ব্রিটিশ মেডিকেল অ্যাশোসিয়েশন বলছে, গ্রীস্মে অনেক ডাক্তার চাকরি ছেড়ে দিয়েছে। তাই জিপি ও হাসপাতাল  গুলো মিলিয়ে ৫০ হাজার ১৯১ জন ডাক্তার কম রয়েছে। শেষ দুই মাসে মানে জুলাই ও আগষ্টে  ৯১৯ জন প্রাইমারী কেয়ার ডাক্তার ও ১১০ জন সেকেন্ডারী কেয়ার ডাক্তার তাদের চাকরি ছেড়ে দিয়েছে। 

বিষয়টি নিয়ে ডাক্তার চাদ নাগপাল আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, আগামী মাস গুলোতে ডাক্তারের উপর কাজের চাপ বেড়ে গেলে আবারও অনেক ডাক্তার চাকরি ছাড়তে পারেন। যা স্বাস্থ্যসেবাকে বিপদের মুখে ফেলবে। 

এদিকে স্বাস্থ্যখাতের বর্তমান পরিস্থিতি থেকে পরিত্রান পেতে দেশটিতে ন্যাশনাল ইন্সুরেন্সের অর্থের পরিমান বাড়ানো হয়েছে। তবে এই অর্থ পর্যাপ্ত নয় বলে মন্তব্য করেছেন চাদ নাগপাল।

আর এম/তানভীর