শীতকালে করোনা ঠেকাতে সরকারের পাঁচ ধাপের পরিকল্পনা

১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:১০ পিএম

Runner Media

যুক্তরাজ্য অফিস

 

যদি শীতকালে করোনা পরিস্থিতি খারাপ হয় তাহলে বাধ্যতামূলক ফেইস মাস্ক এবং ঘরে বসে কাজের যে নিয়ম আগে ছিলো সেই নিয়ম আবার ফিরে আসবে । আজ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন শীতকালের করোনার বিধি বিষয়ক নতুন যে পরিকল্পনা প্রদান করেছেন, সেই পরিকল্পনার প্লান বি-তে ফেইস মাস্ক ও ওয়ার্ক ফর হোমের বিষয়টির কথা বলেছেন।

আজকে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনে শীতকালে করোনা ভাইরাস মোকাবেলা করতে সরকার পাঁচ ধাপের পরিকল্পনা গ্রহন করার কথা জানিয়েছেন। আর এই পাঁচ ধাপের পরিকল্পনার নাম দেওয়া হয়েছে ‘ফাইভ পিলার কোভিড উইন্টার প্লান’। পাঁচ ধাপের পরিকল্পনার প্রথম ধাপে ভেকসিন প্রোগ্রাম। যারা এখনও টিকা গ্রহন করেনি তাদের আবারও টিকা দেওয়ার জন্য নতুনভাবে ক্যাম্পেইন করবে সরকার।

অন্যদিকে ঝুঁকিপূর্ণ মানুষদের বুস্টার ডোজ বা টিকার তৃতীয় ডোজ দেওয়া শুরু করবে খুব দ্রুত। এছাড়া ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সী সবাইকে টিকা দেওয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষনা দেওয়া হয়েছে আজ। টেস্ট, ট্রেস এবং আইসোলেশনের ক্ষেত্রে নতুন নিয়মের কথা বলছে সরকার। পিসিআর টেস্ট এবং লেটারল ফ্লো টেস্ট ফ্রি করে দিয়েছে সরকার। মূলত ভ্রমনকারীদের অতিরিক্ত অর্থ খরচ বাচাতের এই টেস্ট ফ্রি করা হচ্ছে বলে এর আগেই ঘোষনা দিয়েছিলেন স্বাস্থ্য সেক্রেটারি নাদিম জাওয়াই। যা আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হল আজ।

এছাড়া করোনার কন্টাক্ট ট্রেসিং আগের মতোই থাকবে। যাদের বাধ্যতামূলক আইসোলেশনে পাঠানা হবে তাদের অর্থনৈতিক সাহায্য করা হবে। তৃতীয় ধাপে থাকছে ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের মান উন্নয়ন। সরকার এরই মধ্যে ৫ দশমকি ৪ বিলিয়ন পাউন্ডের ফান্ড গঠন করার কথা বলেছে। মূলত হাসপাতালে রোগীদের জট খুলতেই সরকার এই অর্থ বরাদ্দ ঘোষনা করেছে। এছাড়া এনএইচএস স্টাফ এবং সোস্যাল কেয়ার কর্মীদের টিকা দেওয়ার ব্যাপারে আরও জোর দিয়েছে সরকার।

সরকারের চতুর্থ ধাপে থাকছে মাস্ক ও বাইরে দেখা করার বিষয়টি। মানে বর্তমান সময় থেকে শীতকাল পর্যন্ত মানুষদের বাইরে দেখা করার জন্য উদ্বুদ্ধ করার কথা বলা হচ্ছে। তার মানে ঘরের মধ্যে অনেক মানুষের সমাগম বা পার্টি না করার বিষয়টি সামনে আসতে পারে যদি করোনা পরিস্থিতি বৃ্দ্ধি পায়। একই সাথে জনসামগম এলাকায় মাস্ক ব্যবহার করতে হতে পারে আগামী শীতে।

পঞ্চম ধাপে রয়েছে আন্তুর্জাতিক ভ্রমন। যদিও আন্তুর্জাতিক ভ্রমন নিয়ে এখনই সরকারের নতুন কোন পরিকল্পনা নেই। তবে করোনার নতুন ধরনগুলো যাতে আর যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করতে পারে তার জন্য সরকারের বর্ডার আরও বেশি নিয়ন্ত্রণ করার ব্যাপারে জোর দেবে।

আর এম/এম.জে