ব্রিটেনের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন সাজিদ জাভিদ

২১ অক্টোবর ২০২১, ০২:০৩ এএম

Runner Media

যুক্তরাজ্য অফিস

 

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য সেক্রেটারি সাজিদ জাভিদ আজ রাতে ডাউনিং স্ট্রিটে করোনার ‘প্ল্যান সি’ নিয়ে সরকারের পরিকল্পনা জানাতে গত এক মাসের মধ্যে প্রথম সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন। কোভিড 'প্ল্যান সি' এর জন্য এনএইচএসের দাবির বিষয়ে কথা বলবেন তিনি। ব্রিটেনে করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজনকভাবে বেড়ে যাওয়ায় টোরি এমপিদের তীব্র সমালোচনার পরে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হল। 

এর আগে টোরি এমপিরা ব্রিটেনের স্বাস্থ্য সেক্রেটারির সমালোচনা করে করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধ বাড়ানোর এবং ফেস মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করতে দাবি জানান। জানা গেছে, স্বাস্থ্য সেক্রেটারি সন্ধ্যা ৫টায় অনুষ্ঠেয় সংবাদ সম্মেলনে ব্রিফিং করবেন।

যুক্তরাজ্যে প্রায় তিন মাস ধরে সংক্রমণ সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছেছে এবং দেশের বুস্টার ডোজ রোল-আউট নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে এনএইচএস কর্মকর্তারা চান সরকার কঠোর বিধিনিষেধ জারি করুক। যার মধ্যে রয়েছে নাইটক্লাবগুলোতে ভ্যাকসিনের পাসপোর্ট, বাধ্যতামূলক মাস্ক পরা। আগামী সপ্তাহ ও মাসগুলোতে হাসপাতালগুলোর উপর চাপ কমাতে ব্যর্থ হলে পরিস্থিতি আরও ভয়ানক হবে বলে জানিয়েছে তারা।

এদিকে যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের দৈনিক মৃত্যু গতকাল মার্চের পর থেকে সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছেছে। বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন, ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের শাখা AY4.2 এর ক্রমবর্ধমান প্রাদুর্ভাব আরও বেশি সংক্রামক হয়ে উঠতে পারে। সরকারী পরিসংখ্যান বলছে, ইতিমধ্যে এই উপ-স্ট্রেইন দ্বারা সংক্রমণের হার দ্বিগুণ হয়েছে গত একমাসে।

তবে পার্লামেন্টের ব্যাকবেঞ্চাররা এনএইচএসের এসব দাবি মানতে নারাজ। তারা বলছেন, করোনা বিধিনিষেধ পুনরায় বহাল করলে কিংবা লকডাউনের মতো ব্যবস্থা আবার চালু করলে তা অর্থনীতির জন্য খারাপ হবে। স্বাস্থ্য ও সামাজিক যত্ন কমিটির সদস্য পল ব্রিস্টো এনএইচএস কর্তাদের 'সরকারকে নিষেধাজ্ঞায় বাউন্স' করার চেষ্টা করছেন বলে দাবি করেন। তারা বলেন, আমরা এই দেশের মানুষের স্বাধীনতাকে এনএইচএসের পরামর্শের কাছে বিলিয়ে দিতে পারিনা।

এদিকে যুক্তরাজ্যের সরকার এনএইচএসের করোনা বিধিবিধান সংক্রান্ত দাবিগুলো নাকচ করে দিয়েছে। বিজনেস সেক্রেটারি কোয়াসি কোয়ারতেং বলেন, এই মুহূর্তে লকডাউনে যাব না আমরা। ব্রিটেনের মানুষ বহু চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরছে। সব কিছু বিবেচনায় সরকার এখনই এনএইচএসের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করবে না। তবে জনসাধারণকে মাস্ক পরতে উৎসাহিত করা এবং করোনাভাইরাসের বুস্টার ডোজ গ্রহণ ত্বরান্বিত করার ওপর জোর দেন তিনি। এ সময় বিজনেস সেক্রেটারি বুস্টার ডোজের ধীর গতির বিষয়টি স্বীকার করেন। একই সাথে বুস্টার ডোজ দেওয়ার গতি বাড়ানোর অঙ্গিকার করেন তিনি।

সরকারী তথ্য অনুযায়ী, কেয়ার হোমের এক তৃতীয়াংশেরও কম বাসিন্দা তাদের তৃতীয় ডোজ পেয়েছেন। বুস্টার ডোজে মানুষকে আগ্রহী করতে সরকারের একটি নতুন টিভি ক্যাম্পেইন চালু করার কথা রয়েছে।

আর এম/এম.জে